যশোর সিটি কলেজের ছাত্রাবাস দখলে নিতে ছাত্রলীগের একটি গ্রুপের বোমা হামলা

যশোর: যশোর সরকারি সিটি কলেজের ছাত্রাবাস দখলে নিতে বোমা হামলা ও গুলি বর্ষণ করেছে ছাত্রলীগের একটি পক্ষ। তবে, প্রতিপক্ষ ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ বলেছেন, ছাত্রলীগের বহিস্কৃত এবং বহিরাগত সন্ত্রাসীরা এ বোমা হামলা ও গুলি বর্ষণ করেছে। বুধবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ছাত্রলীগের কলেজ শাখা সাধারণ সম্পাদক মহিউদ্দিন রিমনের গ্রুপের মিজু, দাঁতাল লিটন, জিয়া, উত্তম, সুজন, ইমন, তুহিন, শুকুরসহ প্রায় ৩০জন ক্যাম্পাসে মাদক ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। এসময় তারা কলেজের ছাত্রাবাস দখলে নিতে তারা পর পর ৬-৭টি বোমা বিস্ফোরণ ঘটায়।
বোমার স্প্রিন্টারের আঘাতে যুগ্ম সম্পাদক আব্দুল্লাহ-বিন-জাহাঙ্গীর হৃদয়, সমাজসেবা সম্পাদক হুমায়ন কবির (২৫), তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক খসরুজ্জামান খান টিটু (২৪), ছাত্রলীগ নেতা আল আমিন (২৪), আলমগীর হোসেন (২৪)সহ ১০জন আহত হয়।
সংবাদ পেয়ে কোতয়ালি থানার পুলিশ ক্যাম্পাসে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে নেয়।
ছাত্রলীগের সরকারি সিটি কলেজ শাখার সভাপতি খন্দকার মারুফ হুসাইন ইকবাল বলেছেন, তিন বছর আগে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক বিশৃংখলার অভিযোগে কলেজ শাখার সাধারণ সম্পাদক মারুফ হুসাইন রিমনকে বহিস্কার করেন। এরপর থেকে সে কলেজ ছাত্রলীগের কোন ভূমিকা রাখেনি। তাছাড়া কলেজের যুগ্ম সম্পাদক রাকিব হত্যার পর বিভিন্ন কর্মসূচি পালনের সময় তার মোটেও উপস্থিতি ছিল না। হঠাৎ করেই বুধবার কলেজের ছাত্রবাস দখলে নিতে বোমা হামলা ও গুলি বর্ষণ করেছে।
এ ব্যাপারে রিমনের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।
কলেজ অধ্যক্ষ আবু তোরাব মোহাম্মদ হাসান জানিয়েছেন, ঘটনার সময় তিনি নিজ কক্ষে ছিলেন না। বোমা বিস্ফোরণের শব্দ তিনি শুনেছেন। তারা কারা এ হামলার সাথে জড়িত তা তিনি পরিস্কার নয়।