যশোর উপশহরে ইজিবাইকের নকল ব্যাটারির জমজমাট ব্যবসা করছেন আনোয়ার হোসেন

যশোর: যশোরের উপশহরে একটি ইজিবাইকের শো-রুমে নকল ও নিম্নমানের ব্যাটারির জমজমাট ব্যবসা চলছে। নামি-দামি বিভিন্ন ব্রান্ডের নামে এই শো-রুমের মালিক দেদারসে বিক্রি করছেন এসব ব্যাটারি। নিম্নমানের ও নকল এই ব্যাটারি কিনে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন সাধারণ মানুষ।
একাধিক সূত্রে জানা গেছে, উপশহর বিআরটিসি বাস ডিপোর সামনে মানসী সিনেমা হল এলাকায় ‘আনোয়ার এন্টারপ্রাইজ’ নামের এই শো-রুমে শত শত নিম্নমানের ব্যাটারি বিক্রি হচ্ছে। এ ব্যবসার মাধ্যমে শো-রুমটির মালিক আনোয়ার হোসেনের ভাগ্য খুললেও চরম ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন ক্রেতারা। সূত্রগুলো জানায়, নকল ও অতি নিম্নমানের এই ব্যাটারি আমদানি করা হচ্ছে রাজধানী ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থান থেকে। এসব ব্যাটারি অল্পদিনের মধ্যে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে, চার্জও থাকছে না বেশিক্ষণ।
স্থানীয় একাধিক সূত্র জানায়, দীর্ঘদিন যাবত অর্থলোভী আনোয়ার হোসেন তার শো-রুমে নকল ও নিম্নমানের ব্যাটারি বিক্রি করছেন। তারা জানান, প্রথমে মিষ্টি কথা এবং পরে চাপ সৃষ্টি করে সহজ-সরল ক্রেতাদের মাঝে গছিয়ে দেয়া হচ্ছে এসব ব্যাটারি। তারা আরও জানান, নকল ব্যাটারি কিনে ক্ষতিগ্রস্থ লোকজন আনোয়ারের শো-রুমে এসে অভিযোগ করলেও কোন কাজ হচ্ছে না। বরং হুমকি-ধামকি এমনকি মারপিট করে তাদেরকে বিদায় করা হচ্ছে।
উল্লেখ্য, ইতিপূর্বে আনোয়ার হোসেনের শো-রুম থেকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর সদস্যরা অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমান নকল ব্যাটারি উদ্ধার করেন। পরে এগুলো জব্দ করে মোটা অংকের জরিমানা করা হয়। এ ঘটনার পরও আনোয়ার হোসেন বীরদর্পে নকল ও নিম্নমানের ব্যাটারির জমজমাট ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে আনোয়ার এন্টারপ্রাইজের এক কর্মচারী জানান, শুধু শো-রুমে নয় ভাড়া করা গোডাউনেও শত শত ব্যাটারি মজুত রাখা আছে। দরদাম ঠিক হলে ক্রেতাদের নিয়ে যাওয়া হয় গোডাউনে। জানা গেছে, আনোয়ার হোসেন দীর্ঘদিন যাবত মাদকাসক্ত। প্রতিদিন ফেনসিডিল সেবন করেন তিনি। যা পুলিশ প্রশাসনের লোকজন পর্যন্ত জানেন। গতবছর ঈদুল আযহার দু’দিন আগে তিনি কোতয়ালি থানা পুলিশের হাতে আটকও হয়েছিলেন। এই অসাধু ও অর্থলোভী ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে প্রশাসনিক পদক্ষেপ নেয়া জরুরি বলে মনে করেন সচেতনমহল। এদিকে আনোয়ার হোসেন তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তিনি বলেন, ‘আমাকে ব্যবসায়িকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ করার জন্য মিথ্যা অভিযোগ করা হচ্ছে’।