প্রেম হওয়ার পর প্রথম স্বাক্ষাতে স্কুল ছাত্রী ধর্ষণ শিকার

jessore map

jessore mapযশোর : যশোরের চৌগাছা উপজেলার জগদীশপুর তুলাবীজ বর্ধণ এলাকায় নবম শ্রেণির ছাত্রীকে প্রাইভেটের মধ্যে ধর্ষণ করা হয়েছে বলে থানায় মামলা করা হয়েছে। পুলিশ ধর্ষণের অভিযোগে দুইজনকে আটক করেছে। চৌগাছায় বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালিয়ে তাদেরকে আটক করা হয়েছে। আটককৃতরা হলো, চৌগাছা পাশাপোল গ্রামের মোফাজ্জেল হোসেনের ছেলে সাগর ও চৌগাছা পৌরসভার জিওলিগাড়ি গ্রামের বিল্লাল হোসেনের ছেলে সজীব।
উপজেলা শহরের বাসিন্দা ও নবম শ্রেণির স্কুল ছাত্রী থানায় দায়েরকৃত এজাহারে উল্লেখ করেছেন, ফেসবুকের ম্যাসেঞ্জারের মাধ্যমে সাগর আহম্মেদের সাথে তার পরিচয় হয়। এরপর তাদের মধ্যে প্রেম হয়। ম্যাসেঞ্জারের মাধ্যমে প্রেম হওয়ায় তাদের মধ্যে দেখা স্বাক্ষাত না হওয়ায় সাগর ৭ ডিসেম্বর সকালে চৌগাছা উপজেলার জগদীশপুর তুলবীজ বর্ধন খামারে মধ্যে দেখা করার অনুরোধ জানান। সেই অনুরোধে সাড়া দিয়ে নির্ধারিত ৭ ডিসেম্বর সকাল ১০ টায় স্কুল ছাত্রী খামারে আসে। এসময় সাগরের সাথে দেখা হয়। তাদের মধ্যে কিছু সময় কথা হওয়ার পর বেলা ১১টার দিকে ঘুরতে যাওয়ার জন্য কালো রংয়ের একটি প্রাইভেটে তাকে উঠতে বলে। প্রাইভেটের মধ্যে উঠার পর সাগর তাকে ধর্ষণ করে। এসময় সাগরের সহযোগি সজীব তাকে সহযোগিতা করে। সাগরের ধর্ষণের পর সজীবও ধর্ষণের চেষ্টা চালালে স্কুল ছাত্রী চিৎকার দেয়। এর মধ্যে প্রাইভেট কারের চালক চলে আসলে ছাত্রীকে নিয়ে তাদের বাড়ির অদূরে একটি বাজারে নামিয়ে দেয়। ঘটনার ব্যাপারে কাউকে না জানানোর হুমকি দিয়ে বলে-ধর্ষণের ভিডিও করা হয়েছে। জানালে ভিডিওটা ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়া হবে। এরপর স্কুল ছাত্রী বাড়ি গিয়ে তার পিতামাতাকে খুলেন।
শনিবার স্কুল ছাত্রী নিজেই বাদী হয়ে থানায় মামলা করেন। চৌগাছা থানার পুলিশ রবিববার সাগর ও সজিবকে আটক করেছে।
চৌগাছা থানার ওসি রিফাত খান রাজিব বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ধর্ষকদের গ্রেফতার করে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। গ্রেফতারকৃতরা ঘটনার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে। স্কুল ছাত্রীকে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য যশোর জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।