যশোর ২২৭ ত্রি-বার্ষিক নির্বাচন আগামী ২০ মার্চ : সদস্য পদে ছাতা প্রতীক নিয়ে লড়ছেন তরিকুল

যশোর : দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম শ্রমিক সংগঠন যশোর জেলা পরিবহন সংস্থা শ্রমিক ইউনিয়নের-২২৭ ত্রি-বার্ষিক নির্বাচন আগামী ২০ মার্চ। এই নির্বাচনকে ঘিরে ইতিমধ্যে জমজমাট হয়ে উঠেছে। শহরের পুরাতন বাসস্ট্যান্ড মণিহার এলাকা, নতুন বাসটার্মিনাল, খাজুরা বাস্ট্যান্ড নিউমার্কেট, পালবাড়ি, চাঁচড়া মোড়সহ জেলার বিভিন্ন উপজেলা ও গুরুত্বপূর্ন স্থানে পোস্টার সেটেছেন প্রার্থীরা। এই নির্বাচনে নির্বাহী সদস্য পদে লড়ছেন তরিকুল ইসলাম। তিনি ছাতা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন যুদ্ধে সামিল হয়েছেন। দীর্ঘ এক যুগেরও বেশি সময় ধরে তিনি এই সংগঠনের সাধারণ সদস্য থেকে শ্রমিকদের সেবা করে যাচ্ছেন।
এই নির্বাচনে যে ক’জন সদস্য পদে নির্বাচন করছেন তাদের মধ্যে অন্যতম তরিকুল ইসলাম। নির্বাচনে ছোটদের কাছে ভালবাসা আর বড়দের কাছে দোয়া ও আর্শিবাদ নিয়ে জয়লাভ করবেন এমনটাই প্রত্যাশা তরিকুল ইসলামের সমর্থক সাধারণ ভোটররা।
এই নির্বাচন নিয়ে কথা হয় ভোটার আজিজুল ইসলামের সাথে। তিনি বলেন, ‘তরিকুল ভাই এবারের নির্বাচনে সর্বাধিক ভোট পেয়ে জয়লাভ করবেন। তিনি দীর্ঘদিন শ্রমিকদের সেবা করে যাচ্ছেন। তিনি শ্রমিক বান্ধন একজন নেতা। আমরা তাকে জয়লাভ করাবো। আমি নিজে তরিকুল ভাইয়ের ভোট করছি।’
কথা হয়, শহিদুল ইসলামের সাথে। তিনি বলেন, ‘যেখানে যে শ্রমিক বিপদে পড়লেই তরিকুল ভাই সবার আগে এগিয়ে যান। আমরা তাকে ২২৭’র নেতা হিসেবে দেখতে চাই।’
তিনি বলেন, ‘এবারের নির্বাচনে যেসব প্রার্থী সদস্য পদে ভোট করছেন তাদের সবার থেকে যোগ্য তরিকুল ভাই। তরিকুল ভাইকে ভোট না দিয়ে তার সাথে বেঈমানী করা হবে।’
যশোর জেলা পরিবহন সংস্থা শ্রমিক সমিতির নির্বাচনের তফশিল ঘোষলা হওয়ার পর থেকে প্রার্থীরা ছুটছেন বিভিন্ন দরবারে। নির্বাচনে জয় পেতে খাওয়া-দাওয়া হারাম করে দিয়েছেন। কে কিভাবে জয়লাভ করবেন তার জন্য দেনদরবার করে বেড়াচ্ছেন। যোগ দিচ্ছেন বিভিন্ন শ্রমিক বান্ধব মালিক ও সংগঠকদের কাছে।
নির্বাচন নিয়ে কথা হয় তরিকুল ইসলামের সাথে। তিনি বলেন, আমি সংগঠনের সদস্যদের কল্যাণে কাজ করতে চায়। শ্রমিকদের স্বার্থ সংরক্ষণে সর্বদা মাঠে থেকে তাদের কল্যাণ বয়ে আনতে চায়। যে কারণে এবারের নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করছি। শুধু তাই নয়, এক যুগেরও বেশি সময় থেকে আমি এই সংগঠন করি। সেই থেকেই এই সংগঠনের সকল শ্রমিকদের সাথে আমার নাড়ীর সম্পর্ক। সকলের সুখ-দুখে আমি জড়িত। তারাই আমার সব। যখন যেভাবে পেরেছি, সেই ভাবেই শ্রমিকদের সেবা করেছি। এখানে কোন দল নেই। তার পরিচয়, সে শ্রমিক।
তিনি বলেন, এদেশের শ্রমিকরা সব সময় অবহেলিত। তারা কারো কাছে গিয়ে ন্যায় পায় না। তাদের সেই ন্যায় প্রতিষ্ঠা করতে আমি নির্বাচন করছি। এছাড়া যশোর জেলা পরিবহন সংস্থা শ্রমিক ইউনিয়ন একটি শ্রমিক বান্ধব সংগঠনে পরিণত করতে চায়। যে সংগঠন হবে শ্রমিকদের। অ-শ্রমিক এখানে কোন স্থান না পায় তার ব্যবস্থা করতে চায়।
তরিকুল ইসলাম বলেন, দুর্ঘটনা কিম্বা অসুস্থ্য হলে সংগঠনের পক্ষ থেকে চিকিৎসার যাবতীয় ব্যবস্থা করা যায়। মৃত শ্রমিক ও অবসর ভাতা বৃদ্ধির ব্যবস্থা করবো। সেই সাথে সার্বিক সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত করবো।
তরিকুল ইসলাম বলেন, আমি আগামী ২০ মার্চে নির্বাচনে নির্বাচিত হয়ে পরিষদে গেলে সংগঠনের সম্পদ বৃদ্ধির পাশাপাশি আরও ভালো কিছু যাতে করা যায় সেই ব্যবস্থা করবো।
তিনি বলেন, এক কথায় শ্রমিকদের উন্নয়নের জন্য যা যা করার প্রয়োজন আমি নির্বাচিত হলে তা করা হবে।
তরিকুল ইসলাম যশোর জেলা পরিবহন সংস্থা শ্রমিক সমিতি-২২৭ এর সদস্য পাশাপশি বিভিন্ন সামাজিক-সাস্কৃতিক সংগঠনের সাথে জড়িত। ২০ মার্চ নির্বাচনের সকলের দোয়া-আর্শিবাদ ও ভালোবাসা চাই। আর ভোটারদের কাছে আমার প্রত্যাশা ছয়টি ভোটের একটি মাত্র দাবিদার আমি। একটি মাত্র ভোট দিয়ে আমাকে জয়লাভ করাবে এটা আমি সকল ভোটারদের কাছে আশা করছি।