যশোরে চিকিৎসার নামে অপচিকিৎসা চলছে

যশোর : যশোর শহরেই চলছে হাতড়ে ডাক্তারের দৌরাত্ব। শহরের মোল্যাপাড়ার ফার্মাসিস্ট ওরফে ডাক্তার নামে কসাইয়ের বিরুদ্ধে মানুষ হত্যার অভিযোগ উঠেছে। শুধু তাই নয়, চিকিৎসার নামে দীর্ঘদিন অপচিকিৎসা চালিয়ে যাচ্ছে ডাক্তার নামে কসাই রবিউল ইসলাম রবি। একের পর এক মানুষকে মন গড়া ওষুধ দিয়ে মানুষ হত্যা করে চলেছে। এলাকাবাসী ওই ডাক্তারের বিরুদ্ধে অভিযোগ দিলে কোন কাজ হয়নি। উল্টো প্রকাশ্যে চালিয়ে যাচ্ছে তার অপচিকিৎসা।
এলাকাবাসীর অভিযোগ, রবিউল ইসলাম রবি’র অপচিকিৎসায় মৃত্যুর পথে প্রহর গুনছেন মোল্যাপাড়ার বৃদ্ধা সিরাজুল ইসলাম। সম্প্রতি রবিউল ইসলাম রবির সৌরভ ফার্মেসীতে ওষুধ কিনতে যান সিরাজুল ইসলাম। কিন্তু রবি প্রেসক্রিপশন অনুয়ায়ী ওষুধ না দিয়ে নিজের মনগড়া ওষুধ দেন। এই ওষুধ সেবন করে আরো বেশি অসুস্থ্য হয়ে পড়েন। পরে সিরাজুল ইসলামের স্বজনরা তাকে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে তাকে ঢাকায় স্থানন্তর করা হয়। বর্তমানে সিরাজুল ইসলাম ঢাকা ল্যাব এইড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
এদিকে, সিরাজুল ইসলামের স্বজনরা ভুল ওষুধ দেওয়ার বিষয়টি জানতে রবিউল ইসলাম রবি কাছে গেলে উল্টো হুমকি দেওয়া হয়। এমনকি রবি শ্যালক মোস্তাক সিরাজুল ইসলামের বাড়ি গিয়ে ওষুধ কেনার বিষয়ে বাড়াবাড়ি না করার জন্য হুমকি দেয়।
এ ঘটনায় সিরাজুল ইসলামের ছেলে মিজানুল ইসলাম বাদী হয়ে যশোর কোতয়ালি থানায় একটি এজাহার দাখিল করেছেন। কিন্তু ওই এজাহারের বিষয়ে পুলিশ আজ পর্যন্ত কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেননি।
এ ব্যপারে রবিউল ইসলাম রবি’র মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তার স্ত্রী ফোনটি রিসিভ করেন। তিনি জানান, তার স্বামী যশোর ইবনে সিনা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এখন তিনি অসুস্থ্য কোন কথা বলতে পারছেন না।
শুধু সিরাজুল ইসলামই নয়, এর আগে মোল্যাপাড়ার খায়রুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তিকে ভুল ওষুধ প্রয়োগ করে হত্যা করে রবিউল ইসলাম রবি। মোল্যাপাড়া আমতলা মোড়ে ফিরোজের স্ত্রী রওশন আরা নামে নারীকেও ভুল ওষুধ দেয়। এতে ওই নারী মৃত্যুর পথযাত্রী হয়। পরে ঢাকায় নিয়ে তাকে চিকিৎসা করানো হয়। এতে রওশন আরার ৩০ লাখ টাকার উপরে ব্যায় হয়। তিনি এখনো রবিউল ইসলাম রবির ভুল চিকিৎসার যন্ত্রাণা বয়ে বেড়াচ্ছেন।
এদিকে, একের পর এক অপচিকিৎসার কারণে মোল্যাপাড়ায় জনমনে ক্ষোভ ও হতাশা বিরাজ করছে।
কথা হয় মোল্যাপাড়ার আব্দুল ওয়াবের সাথে। তিনি বলেন, এ ডাক্তার না, এ কসাই, মানুষ মারার কারিগর।
সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, দোকান বন্ধ। দেওয়ালে সৌরভ ফার্মেসী লিখে সাইনবোর্ড বানিয়েছে। সাইবোর্ডে কোন লাইসেন্স নম্বর উল্লেখ নেই।
এলাকাবাসীর জিজ্ঞাসা লাইসেন্স বিহীন একজন ঔষধ বিক্রেতা কিভাবে ডাক্তার সেজে বহালতবিয়াতে রোগী দেখে চলেছে। ওষুধ প্রশাসনকে বৃদ্ধা আঙ্গুল দেখিয়ে চিকিৎসার নামে মানুষকে ঠকিয়ে হাজার হাজার টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে রবিউল ইসলাম রবি।
এদিকে, ভুক্তভোগীদের দাবি এই রকম অপচিকিৎসায় আর কারও জীবন দিতে না হয় তার জন্য জরুরীভাবে তদন্ত পূর্বক অপরাধের শাস্তির আইন প্রয়োগকারী সংস্থার হস্তক্ষেপ কামনা করেন।