ঝিকরগাছায় বিয়ের শর্তে ধর্ষণ ঘটনা চাপা দেওয়ার চেষ্টা

ঝিকরগাছা : যশোরের ঝিকরগাছায় পিতৃহারা তরুণী ধর্ষণের ঘটনাকে ধামা চাপা দেওয়ার চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। ধর্ষকের সঙ্গে বিয়ের কথা বলে এলাকার প্রভাবশালী মহল চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। গত ৩০জুলাই রাতে উপজেলার নাভারণ ইউনিয়নের রঘুনাথপুর বাকী গ্রামে এ ধর্ষণের ঘটনাটি ঘটেছে।
রঘুনাথপুর বাকী গ্রামের আলিমুর রহমান বলেন, একই গ্রামের চান্দু মিয়ার ছেলে মেহেদী হাসান (১৯) ওই রাতে তার (পিতৃহারা তরুণী) চাচাত বোনের ঘরে জোরপূর্বক প্রবেশ করে ভয় দেখিয়ে ধর্ষণ করে। প্রতিবেশীরা এসময় মেহেদী হাসানকে আটক করে এবং কতিপয় ব্যক্তি তরুণীর সঙ্গে মেহেদীর বিয়ে দেওয়ার শর্তে ধর্ষককে ছেড়ে দেয়। পরে তারা নানা তালবাহানায় সময়ক্ষেপণ করে ধর্ষকের কাছ থেকে আর্থিক সুবিধা নিচ্ছে বলেও তিনি অভিযোগ করেন।
অভিযুক্ত ধর্ষকের বাবা চান্দু মিয়া বলেন, মেয়ের সঙ্গে আমার ছেলের প্রেমজ সম্পর্ক আছে। আজ রাতে তাদের বিয়ে হবে।
স্থানীয় ইউপি সদস্য জামাল হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, ধর্ষণের বিষয়টি শুনেছি। তবে ধর্ষকের সঙ্গে বিয়ের কথা বলে একটি প্রভাবশালী মহল ঘটনা ধামা চাপা দেওয়ার চেষ্টা করছে বলেও তিনি অভিযোগ পেয়েছেন।
ঝিকরগাছা থানা পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মেজবাহ উদ্দীন আহমেদ বলেন, বিষয়টি থানার জানা নেই এবং এ ব্যাপারে কোন অভিযোগও পাওয়া যায়নি।