নাভারণ ফজিলাতুন নেছা মহিলা কলেজে একাদশ শ্রেনিতে জোরপূর্বক অন্য বিষয়ে ভর্তির অভিযোগ

এ আলী, বেনাপোল : নাভারণ ফজিলাতুন নেছা মহিলা কলেজে একাদশ শ্রেনিতে ভর্তিচ্ছু ছাত্রীদের পছন্দ অনুযায়ী বিষয় ব্যাতিত অন্য বিষয় জোর পূর্বক চাপিয়ে দিয়ে ভর্তির অভিযোগ উঠেছে কলেজ কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে।

১৫ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার ভর্তিচ্ছু ছাত্রী লামিয়া খাতুন রানি, মোছা. শিমলা খাতুন, শিরিনা পারভীন, লাবনী খাতুন, রিমা আক্তারসহ বেশ কয়েকজন কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে বেআইনীভাবে এই ভর্তির বিষয়ে এ অভিযোগ করে।

তবে কলেজ কর্তৃপক্ষ বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন কলেজের রেজুলেশন অনুযায়ী আমরা ভর্তি কার্যক্রম চালাচ্ছি।

লামিয়া খাতুন রানি জানান, আমি ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে একাদশ শ্রেনিতে ভর্তি হওয়ার জন্য শার্শা উপজেলার নাভারণ ফজিলাতুন নেছা মহিলা কলেজে আসি। ভর্তির সময় আমি সমাজবিজ্ঞান, অর্থনীতি, ভূগোল ও ইসলাম শিক্ষা চয়েজ করি। কিন্তু কলেজ কর্তৃপক্ষ আমাকে সমাজবিজ্ঞান ও ইসলাম শিক্ষার পরিবর্তে যুক্তিবিদ্যা ও মনোবিজ্ঞান বিষয় সিলেক্ট করে ভর্তি করে। আমি যে বিষয় নিয়ে পড়তে চাই তা কলেজ কর্তৃপক্ষ আমাকে সে বিষয় দেয়নি। জোর করে চাপিয়ে দেওয়া বিষয় মানসিকভাবে আমার মেধাবিকাশে বাধাগ্রস্ত হবে।

মোছা. শিমলা খাতুন জানান, ভর্তির সময় আমি সমাজবিজ্ঞান, অর্থনীতি, ভূগোল ও ইসলাম শিক্ষা চয়েজ করি। কিন্তু কলেজ কর্তৃপক্ষ আমাকে ভূগোল, সমাজবিজ্ঞান ও ইসলাম শিক্ষার পরিবর্তে পৌরনীতি, যুক্তিবিদ্যা ও মনোবিজ্ঞান বিষয় সিলেক্ট করে ভর্তি করে। আসলে আমি যে বিষয় নিয়ে পড়তে চাই সে বিষয়টিতে আমি ভর্তি হতে পারছিনা। আমার ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোর করে বিষয়গুলো চাপিয়ে দিলে মেধা বাধাগ্রস্ত হবে এবং আমি আমার কাঙ্খিত ফলাফল পাব না।

নাভারণ ফজিলাতুন নেছা মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ লায়লা আফরোজ বানু ওরফে মলি বলেন, এবিষয়ে আমাদের একটা রেষ্ট্রিকশন আছে। পরে সাবজেক্ট চেঞ্জ করার সময় আছে, তখন সাবজেক্ট চেঞ্জ করে নেবে। তবে সেটাও ঢালাওভাবে না।