ভারতের পেট্রাপোল স্থলবন্দরে ২য় দিনের মত আমদানি রফতানি বন্ধ

এ আলী, বেনাপোল :
আজ সোমবার ২য় দিনের মত ভারতের পেট্রাপোল স্থল বন্দরের জীবন জীবিকা বাঁচাও কমিটির ৫ দফা দাবি আদায়ের লক্ষ্যে বেনাপোল-পেট্রাপোল বন্দর দিয়ে দু-দেশের মধ্যে আমদানি রফতানি বন্ধ রয়েছে।
ফলে দু’দেশের বন্দর এলাকায় আটকা পড়েছে কয়েকশত পণ্য বোঝাই ট্রাক। আটকে থাকা অধিকাংশ পণ্য বোঝাই ট্রাকে রয়েছে পচনশীল ও বিভিন্ন শিল্প কারখানার কাঁচামাল। ডেমারেজ গুনতে হচ্ছে আমদানি রফতানিকারক প্রতিষ্ঠানকে।
করোনার কারণে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখাসহ অনেক কিছু মেনে আমদানি-রফতানিসহ চেকপোস্টের অন্যান্য কার্যক্রম স্বাভাবিকতা ফিরিয়ে আনা হয়। এসব নিয়ম মেনে চলতে গিয়ে সাধারণ কুলিদের রুটি রুজির উপর হাত পড়েছে। কুলি ও সাধারণ ব্যবসায়ীরা কর্মস্থল ফিরে পেতে তারা আন্দোলন করছেন।
৫ দফা দাবিগুলো হলো-১। অবিলম্বে পূর্বের ন্যায় হ্যান্ড কুলি ও পরিবহন কুলিদের কাজে পরিবেশ ফিরিয়ে দিতে হবে। ২। পূর্বের ন্যায় চালক ও সহকারীদের পায়ে হেঁটে পেট্রাপোল-বেনাপোল বন্দরের মধ্যে যাতায়াতের ব্যবস্থা করতে হবে। ৩। সাধারণ ব্যবসায়ী ( মুদ্রা বিনিময়কারী, পরিবহন, ক্লিয়ারিং এন্ড ফরওয়াডিং এজেন্ট, চালক সহকারী ও অন্যান্য এজেন্সি নিরাপত্তার নামে অত্যাচার বন্ধ করতে হবে)। ৪। বাংলাদেশে ২৪ ঘন্টার মধ্যে পণ্যবাহী গাড়ীগুলো খালি করার ব্যবস্থা করতে হবে। ৫। আধুনিকতার অজুহাতে শ্রমিকদের কর্মহীন করা চলবে না।
পেট্রাপোল ষ্টাফ ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের সভাপতি শশাঙ্ক শেখর ভট্টাচার্য বলেন, রবিবার ভারতের বনগাঁ পেট্রাপোল অঞ্চলে শ্রমিকদের জীবন জিবিকা বাঁচাও কমিটির আন্দোলন শুরু হয়েছিল। রবিবার ভারতে সাপ্তাহিক ছুটি থাকায় সরকারী আধিকারীদের সাথে কোন বৈঠক করা সম্ভব হয়নি, বিধায় আন্দোলন চলমান থাকায় আজও আমদানি-রফতানি বন্ধ। তিনি আরও বলেন দুপুরের পর অথবা দুপুরে সরকারী আধিকারীদের সাথে বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে এবং সেই বৈঠকে সিদ্ধান্ত হবে কখন কাজ চালু হবে।
বেনাপোল সিএন্ডএফ এজেন্ট ষ্টাফ এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সাজেদুর রহমান জানান, কোভিড-১৯ সময় থেকে সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখতে বিভিন্ন শর্তে ভারতের পেট্টাপোল বন্দরে কর্মরত বনগাঁ এলাকার শ্রমিকদের পণ্য লোড আনলোড সহ ল্যাগেজ হ্যান্ডলিংয়ে বিভিন্ন নির্দেশনা দেয় পেট্টাপোল কাষ্টম ও বন্দর কর্তৃপক্ষ। এটা বাস্তবায়ন হলে অনেক শ্রমিক বাদ পড়ার আশংকা রয়েছে। এর প্রতিবাদে কর্মবিরতি ডাকে তারা। ফলে বন্ধ রয়েছে আমদানি রফতানি।
বেনাপোল বন্দর উপ-পরিচালক প্রশাসন মামুন তরফদার বলেন, ভারতীয় অংশে কর্মবিরতির কারণে বেনাপোল ও পেট্রাপোল বন্দর দিয়ে আমদানী রফতানি পণ্য পরিবহন বন্ধ রয়েছে। তবে বন্দর ও কাষ্টমসের কার্যক্রম রয়েছে সচল। পাসপোর্ট যাত্রী গমনাগমন রয়েছে স্বাভাবিক।