মুক্তি পেয়েছেন কাউন্সিলর রিপন : বঙ্গবন্ধুর মূর‌্যালে শ্রদ্ধা নিবেদন

যশোর : যশোর পৌরসভার এক নম্বর ওয়ার্ড থেকে নির্বাচিত কাউন্সিলর সাহিদুর রহমান রিপন মুক্তি পেয়েছেন। সকালে যশোর জেলা জর্জ আদালত থেকে তিনি মুক্তি পান। মুক্তি পাওয়ার পর বিকালে যুবলীনের নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মূর‌্যালে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। করোনাকালে সামাজিক দূরাত্ব বজায় রেখে বঙ্গবন্ধুর মূর‌্যালে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। বর্তমান সরকারের আমলে দক্ষিণবঙ্গের একমাত্র প্রার্থী কারাগার থেকে বিপুল ভোটে জয়লাভ করেন সাহিদুর রহমান রিপন। যশোর পৌরসভার নির্বাচিত কাউন্সিরদের মধ্যে সর্বোচ্চ ভোট পেয়ে রিপন জয়লাভ করেছেন।
যশোর পৌরসভার নির্বাচনের এক সপ্তাহ আগে (২৪ মার্চ) একটি হত্যা মামলায় সিআইডি পুলিশ রিপনকে গ্রেফতার করে। রিপনের গ্রেফতারে পর অভিযোগ উঠে জেলা আওয়ামী লীগের শীর্ষ এক নেতার আর্শিবাদপুষ্ট এক মাদক ব্যবসায়ীকে কাউন্সিলর পদে পাস করানোর উদ্দেশ্যে জনপ্রিয় কাউন্সির প্রার্থী সাহিদুর রহমান রিপন জনপ্রিয়তায় ঈর্ষাণিত হয়ে এ কা- ঘটিয়েছে।
সে সময় এলাকাবাসীরা অভিযোগ করেন, জেলা আওয়ামী লীগের শীর্ষ ওই নেতার সাথে যশোরে মাদক ও অস্ত্র ব্যবসায়ীদের রয়েছে দহরম-মহরম সম্পর্ক। শীর্ষ ওই নেতার ক্যাডার বাহিনী পুরো জেলায় এখনো টেন্ডার, চাঁদাবাজি, মাদক ও অস্ত্রসহ নানা অপরাধের সাথে যুক্ত।
তারা আরো অভিযোগ করেন, শহরের এক নং ওয়ার্ডের এক সময়ের আলোচিত মাদক কারবারী আবু তালেব ক্রাসফায়ারে নিহত হওয়ার পর তার সা¤্রজ্য দখল নেয় এক কাউন্সিলর প্রার্থী। তিনি মূলত জেলা আওয়ামী লীগের শীর্ষ ওই নেতার আর্শিবাদপুষ্ট। এ নির্বাচনে চিহিৃত মাদক কারবারীকে কাউন্সিলর পদে বিজয়ী করতে ষড়যন্ত্র মূলকভাবে জনপ্রিয় যুবলীগ নেতা সাহিদুর রহমান রিপনকে গ্রেফতার করান। কিন্তু তারপরও রিপনের বিজয় ঠেকাতে পারেনি জেলা আওয়ামী লীগের ওই শীর্ষ নেতা। এলাকাবাসীর ভালোবাসায় ৫ হাজারেরও বেশি ভোট পেয়ে রিপন জয়লাভ করেন।
দীর্ঘ এক মাস কারাগার থেকে আজ রোববার সাহিদুর রহমান যশোর কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মুক্তি পেযেছেন।